ডিজেআই বের করলো ম্যাভিক টু ড্রোন ক্যামেরা

দুই মডেল, দুই রকম ফিচার
ডিজেআই ম্যাভিক টু প্রো। ছবিঃ ডিজেআই

জনপ্রিয় ম্যাভিক সিরিজের নতুন দুটি ড্রোন উন্মুক্ত করেছে ডিজেআই। ম্যাভিক টু প্রো ও ম্যাভিক টু জ্যুম নামের নতুন এই ড্রোন দুটিতে থাকছে ১ ইঞ্চির সেন্সর ও অপটিক্যাল জ্যুম।

ম্যাভিক টু প্রো

ম্যাভিক টু প্রোতে থাকছে হ্যাসেলব্ল্যাডের ডিজাইন করা ১ ইঞ্চি সেন্সরযুক্ত ক্যামেরা। এর অ্যাপারচার এফ/২.৮ থেকে এফ/১১ পর্যন্ত। এর রেজ্যুলেশন ২০ মেগাপিক্সেলের। এটি ১০ বিটের হাই ডাইনামিক রেঞ্জ ভিডিও শ্যুট করতে পারে। এছাড়া এতে ব্যবহার করা যাবে ১০ বিটের ডিলগ কালার প্রোফাইল, যা পোস্ট প্রোডাকশনে কালার গ্রেডিংয়ে সাহায্য করবে।

যেকোনো লাইটিং কন্ডিশনে শ্যুট করার জন্য তৈরি করা হয়েছে ম্যাভিক টু প্রো কে। এতে ব্যবহার করা হয়েছে হ্যাসেলব্ল্যাড ন্যাচারাল কালার সলিউশন টেকনোলজি।

হাই এফেসিয়েন্সি ভিডিও কোডেক (HEVC বা H.265) ব্যবহার করার কারণে এর ভিডিও আরো বেশি তথ্য সংরক্ষণ করতে পারে। এর ফলে ভিডিওতে আগের চেয়ে বেশি ডিটেইল দেখা যাবে। সর্বোচ্চ ৬ কিলোমিটার উচ্চতায় উঠতে পারে ম্যাভিক টু প্রো। এর গতি ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৭২ কিলোমিটার। এছাড়া এটি ঘণ্টায় ৩৪ কিলোমিটার বেগে আসা বাতাস প্রতিহত করতে পারে।

ডিজেআই ম্যাভিক টু প্রো ও জ্যুম
ডিজেআই ম্যাভিক টু প্রো ও জ্যুম। ছবিঃ ডিজেআই

ম্যাভিক টু জ্যুম

ম্যাভিক টু প্রোতে ১ ইঞ্চির সেন্সর ব্যবহার করা হলেও ম্যাভিক টু জ্যুমে থাকছে ১/২.৩ ইঞ্চির সেন্সর যার রেজ্যুলেশন ১২ মেগাপিক্সেল। ম্যাভিক টু জ্যুমের হাইলাইট ফিচার হচ্ছে এর টু এক্স অপটিকাল জ্যুম (২৪ – ৪৮ মিলিমিটার) ও ফোর এক্স লসলেস ডিজিটাল জ্যুম করার ক্ষমতা। এর ফলে বিল্ডিং, পশুপাখি বা মানুষের কাছাকাছি না গিয়েই দূর থেকে জ্যুম করে ভিডিও রেকর্ড করা সম্ভব হবে।

ম্যাভিক টু জ্যুমের সবচেয়ে দারুণ ফিচার হচ্ছে ডলি জ্যুম করার ক্ষমতা। ক্যামেরাতেই এধরনের ইফেক্ট বিল্টইন থাকার ফলে এধরনের সিনেমেটিক শট শ্যুট করা অনেক সহজ হয়ে গেলো। এরিয়েল ফটোগ্রাফি নিয়ে যাদের বেশি আগ্রহ তাদের জন্য এতে থাকছে সুপার রেজ্যুলেশন মোড – যা ৯ টি ছবিকে জোড়া লাগিয়ে ৪৮ মেগাপিক্সেলের ছবি তৈরি।

সাধারণ বৈশিষ্ট্য ও দাম

ম্যাভিক টু প্রো ও ম্যাভিক টু জ্যুমের ফ্লাইট ডিউরেশন এখন ৩১ মিনিট। মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট থাকার পাশাপাশি দুটি ক্যামেরাতেই থাকছে ৮ গিগাবাইটের বিল্টইন স্টোরেজ। এছাড়া ড্রোন দুটির ক্যামেরা সর্বোচ্চ ফোরকে @৩০এফপিএসে ভিডিও রেকর্ড করতে পারে। এছাড়া থাকছে অমনিডিরেকশনাল অবস্টাকল সেন্সর – যা সবদিক থেকে কোন কিছুর সাথে ধাক্কা লাগা থেকে ম্যাভিক টুকে সুরক্ষা দিবে। ম্যাভিক টু সর্বোচ্চ ৮ কিলোমিটার দূর থেকে ফুল এইচডি ভিডিও ট্রান্সমিট করতে পারবে।

ম্যাভিক টু প্রো এর দাম ১৫০০ ডলার। অন্যদিকে ম্যাভিক টু জ্যুমের দাম রাখা হয়েছে ১২৫০ ডলার।

সোর্সঃ ডিজেআই



আপনার মন্তব্য

মন্তব্য করার পূর্বে মনে রাখুন এডিটোরিয়াল টিম সাইটে কমেন্ট মডারেশন করছে। কোন ধরনের মন্তব্য করা যাবেনা তা জানতে মন্তব্যের নীতিমালা দেখুন। আপনার ইমেইল অ্যাড্রেস প্রকাশ করা হবেনা।