সনিকে টপকে প্রথম হওয়ার জন্য ক্যামেরা সেন্সর প্রোডাকশন বাড়াচ্ছে স্যামসাং

সনি বনাম স্যামসাং। ছবিঃ টেক আপডেট

এবার ক্যামেরা সেন্সরের প্রোডাকশন বাড়ানোর চিন্তা করছে স্যামসাং। স্যামসাংয়ের লক্ষ্য সনিকে বাদ দিয়ে ইমেজ সেন্সর ইন্ডাস্ট্রিতে কিভাবে প্রথম হওয়া যায়। ২০১৭র শেষ অব্দি ইমেজ সেন্সর ইন্ডাস্ট্রিতে সনির গ্লোবাল মার্কেট শেয়ার ছিল ৫০%। কিন্তু এবার সনির শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হতে যাচ্ছে স্যামসাং।

দক্ষিণ কোরিয়ার ইটিনিউজের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে স্যামসাংয়ের নতুন এই লক্ষ্যের কথা। বর্তমানে ইমেজ সেন্সরের চাহিদা কয়েকগুণ বেড়ে গিয়েছে স্মার্টফোনের ডুয়েল ক্যামেরা এবং গাড়িতে ক্যামেরা ব্যবহারের জন্য। স্যামসাং তাদের সেন্সরের মান নিয়েও বেশ আশাবাদী – তাদের সেন্সর সনির টেকনোলজির সাথে পাল্লা দিতে পারবে।

স্যামসাং তাদের হুয়াসং সেমিকন্ডাক্টর প্লান্টের কনভার্সন করবে ইমেজ সেন্সর তৈরি করার জন্য। আগে এখানে ডির‍্যাম তৈরি করা হতো। কনভার্সন শেষ হলে প্রতি মাসে স্যামসাংয়ের পক্ষে ১ লাখ ২০ হাজার ইমেজ সেন্সর তৈরি করা সম্ভব হবে।

এদিকে সনির বর্তমান ইমেজ সেন্সর প্রোডাকশন ক্যাপাসিটি প্রতি মাসে ১ লাখ। সনি যদি তাদের প্রোডাকশন ক্যাপাসিটি বৃদ্ধিও করে, তারপরো স্যামসাংয়ের ক্যাপাসিটি সনির চেয়ে বেশি বা সনির সমান হবে কনভার্শন শেষ হবার পর। স্যামসাংয়ের প্রোডাকশন ক্যাপাসিটি বৃদ্ধির কারণ নাকি শুধুই কনফিডেন্স। স্যামসাং মনে করছে ইমেজ সেন্সরের টেকনোলজিতে তারা সনির কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। পৃথিবীতে একমাত্র সনি এবং স্যামসাংই কমার্শিয়ালভাবে সেন্সরের সাথে ডির‍্যাম যোগ করেছে, যেটি সেকেন্ডে ৯৬০ ফ্রেমের ছবি প্রসেস করতে পারে।

স্যামসাংয়ের সাম্প্রতিক গ্যালাক্সি এস নাইন সিরিজে এই টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু একই সময়ে এস নাইন যখন সেকেন্ডে ৯৬০ ফ্রেম এইচডিতে রেকর্ড করতে পারে তখন সনির এক্সপেরিয়া এক্সজিটু তা ফুলএইচডিতে রেকর্ড করতে পারে।

সোর্সঃ  ইটিনিউজপেটাপিক্সেল



আপনার মন্তব্য

মন্তব্য করার পূর্বে মনে রাখুন এডিটোরিয়াল টিম সাইটে কমেন্ট মডারেশন করছে। কোন ধরনের মন্তব্য করা যাবেনা তা জানতে মন্তব্যের নীতিমালা দেখুন। আপনার ইমেইল অ্যাড্রেস প্রকাশ করা হবেনা।