জ্বালানি শেষ হয়ে যাওয়ায় মৃত্যু ঘটতে যাচ্ছে নাসার কেপলার স্পেস টেলিস্কোপের

কেপলার স্পেস টেলিস্কোপ। ছবিঃ নাসা

নয় বছর ধরে পৃথিবী থেকে ৯৪ মিলিয়ন মাইল দূরে পৃথিবীর মতো গ্রহ খুঁজেছে নাসার স্পেস টেলিস্কোপ কেপলার। এই দীর্ঘ সময়ে একে নানাধরনের সমস্যার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে, কখনো কসমিক রে দিয়ে স্পেসক্রাফট ব্লাস্ট হওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হওয়া তো কখনো মেকানিকাল সমস্যার কারণে স্পেসক্রাফট বন্ধ হয়ে যাওয়ার অবস্থা তৈরি হওয়া। তারপরও কেপলার এতোদিন ধরে প্রায় সাড়ে চার হাজার এক্সোপ্ল্যানেটের সন্ধান দিয়েছে। এখন নাসা বলছে কেপলার তার জীবনের শেষ সময়টুকু পার করছে, কারণ জ্বালানি শেষ হতে চলেছে। আর মাত্র কয়েক মাস পরেই কেপলার আর চলতে পারবেনা।

স্পেসক্রাফটি লঞ্চ করা হয় ২০০৯ সালে। সেকেন্ড রিঅ্যাকশন হুইল ভেঙ্গে যাওয়ায় ২০১৩ সালেই এটির প্রাইমারি মিশন বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু এরপরো বিজ্ঞানীরা অন্য উপায়ে দূরবর্তী গ্রহ দেখার ব্যবস্থা করেছিলেন। নাসা বলছে এতো সমস্যায় টিকে থাকার পরও কেপলার যেহেতু এতোদিন কাজ করেছে তাই মিশনটিতে তারা দারুণভাবে সফল হয়েছে।

প্রথমদিকে ঠিক করা হয়েছিল কেপলারের ফুয়েল ট্যাংক পুরো ভরা হবেনা। এর মাধ্যমে স্পেসক্রাফটটি সর্বোচ্চ ছয় বছর চলতে পারবে। কিন্তু এরপর যখন স্পেসে পাঠানোর আগে কেপলারের ওজন মাপা হলো তখন দেখা গেলো ওজনের দিক থেকে এটি কম হয়ে গেছে। তখন কেপলারের ফুয়েল ট্যাংক পুরোটা ভরা হয় যার ফলে এতোদিন ধরে এটি চলতে পেরেছে।

নাসা এখন চিন্তা করছে কিভাবে কেপলারকে পৃথিবীর আরো কাছে নিয়ে আসা যায়। পৃথিবীর কাছাকাছি আনতে পারলে কেপলার থেকে আরো বেশি তথ্য সংগ্রহ করা সম্ভব হবে।

তবে কেপলারের মৃত্যু ঘটলেও এধরনের মিশন বন্ধ হচ্ছেনা নাসার জন্য। কারণ বিকল্প হিসেবে তৈরি করা হয়েছে ট্রানজিটিং এক্সোপ্ল্যানেট সার্ভে স্যাটেলাইট  বা টেস। এপ্রিলের ১৬ তারিখে ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল থেকে লঞ্চ করা হবে টেস কে।

সোর্সঃ  নাসা



১ টি মন্তব্য

  • শনিবার, ২৮ মার্চ, ২০২০ at ৬:৫০ অপরাহ্ণ
    Permalink

    Long time supporter, and thought I’d drop a comment.

    Your wordpress site is very sleek – hope you don’t mind me asking what theme you’re
    using? (and don’t mind if I steal it? :P)

    I just launched my site –also built in wordpress like yours– but the theme slows (!) the site down quite a
    bit.

    In case you have a minute, you can find it by searching
    for “royal cbd” on Google (would appreciate
    any feedback) – it’s still in the works.

    Keep up the good work– and hope you all take care of yourself during the coronavirus scare!

    উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য

মন্তব্য করার পূর্বে মনে রাখুন এডিটোরিয়াল টিম সাইটে কমেন্ট মডারেশন করছে। কোন ধরনের মন্তব্য করা যাবেনা তা জানতে মন্তব্যের নীতিমালা দেখুন। আপনার ইমেইল অ্যাড্রেস প্রকাশ করা হবেনা।